Tuesday, September 21, 2021
Home রাজ্য পুরুলিয়া-বীরভূম-বাঁকুড়া সম্পত্তির লোভে মা'কে খুন,গ্রেফতার গুণধর ছেলে ও বৌমা।

সম্পত্তির লোভে মা’কে খুন,গ্রেফতার গুণধর ছেলে ও বৌমা।

মাকে খুন এর অভিযোগে ছেলে ও বৌমা গ্রেফতার।

কৌশিক সালুই বীরভূম 13 জানুয়ারি:- সম্পত্তির লোভে মাকে খুন করার অভিযোগ উঠল ছেলে ও বোমার বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে বীরভূমের মহম্মদ বাজার থানার আঙ্গারগড়িয়া গ্রামে। ইতিমধ্যেই অভিযুক্ত ছেলে ও বৌমাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ধৃতদের বুধবার আদালতে তোলা হয় ছেলের পুলিশি হেফাজত এবং বৌমার জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। যদিও ছেলে ও বৌমা তাদের বিরুদ্ধে ওঠা খুনের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন,’মা অবৈধ মদের কারবার করত এবং বোন বহু পুরুষের সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িত ছিল, দুই ঘটনার প্রতিবাদ করায় চক্রান্ত করে তাদের ফাঁসানো হয়েছে’।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে,”গত 10 ডিসেম্বর বন্দনা দাস বাড়িতে মারা যান।মায়ের মৃতদেহ সৎকারের জন্য উদ্যোগ নিলে বোন ও মামার বাড়ির লোকজন ছেলে রাহুল দাস কে বাধা দেয়। ইতিমধ্যেই বন্দনা দাসের ভাই গোপিবল্লভ দাস রাহুল দাস ও তার স্ত্রী সৌমি দাসের নামে মহম্মদ বাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করে।

অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ দুজনকে গ্রেপ্তার করে এবং মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সিউড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে পাঠায়। বুধবার ধৃত দুজনকে সিউড়ি আদালতে তোলা হয়। পুলিশ অভিযুক্ত ছেলে রাহুলের সাতদিনের হেফাজত চাইলে বিচারকরা পাঁচদিনের মঞ্জুর করেন এবং সৌমির 14 দিনের জেল হেফাজত নির্দেশ দেন।

মৃতার পরিবার সূত্রে জানা গেছে,রাহুলের বাবা পক্ষাঘাতগ্রস্ত এবং মায়ের একটি হোটেল আছে। রাহুল ও তার স্ত্রী ব্যাঙ্গালোরে বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত ছিল কিন্তু তার বাবা অসুস্থ হওয়ার পর বাড়ি ফিরে আসে।জানাযায়,বাবার নামে থাকা বাড়িটি সম্প্রতি রাহুল তার নামে লিখে নিয়েছিল।সে নিয়ে বর্তমানে বিবাদ চলছিল মা ও বোনের সঙ্গে।

তবে,খুন না স্বাভাবিকভাবে মারা গেছে বন্দনা দাস তা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসার পর জানা যাবে। সিউড়ি আদালতের ভারপ্রাপ্ত সরকারি আইনজীবী মোক্তাব হোসেন বলেন,” “মা কে খুনের অভিযোগের ভিত্তিতে ছেলে ও বৌমাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে তোলা হলে, বিচারক ছেলের পুলিশি হেফাজত মঞ্জুর করেন ও বৌমাকে জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন”।

এদিকে,অভিযুক্ত রাহুল ও তার স্ত্রী সৌমি বলেন,” মা বেআইনি মদের কারবার করত এবং বোন বহু পুরুষের সঙ্গে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে আছে। এই দুই ঘটনার প্রতিবাদ করায় তাদের সঙ্গে আমাদের বিবাদের সূত্রপাত হয়। সেই কারণেই বোন মাসিদের সঙ্গে চক্রান্ত করে আমাদের কে ফাঁসিয়েছে। আমরা কোনভাবেই মায়ের খুনের সঙ্গে জড়িত নয়”।

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

× How can I help you?