Monday, March 1, 2021
Home রাজ্য পুরুলিয়া-বীরভূম-বাঁকুড়া মাত্র ৬৫ টাকা দিন আর সারাবছর পেটপুরে খান,উদ্যোগ নীলকান্ত থান্দারের।

মাত্র ৬৫ টাকা দিন আর সারাবছর পেটপুরে খান,উদ্যোগ নীলকান্ত থান্দারের।

65 টাকার কার্ড করালেই মিলছে 365 দিন দুবেলা খাবার অভিনব উদ্যোগ নীলকান্ত থান্দারের ।

নরেশ ভকত, বাঁকুড়াঃ মানুষ হয়ে মানুষের পাশে থাকব এর থেকে বড় আনন্দ আর কি আছে আর তাই মানুষের পাশে থাকার জন্য অভিনব উদ্যোগ গ্রহণ করল সোনামুখী পৌরসভার দুই নম্বর ওয়ার্ডের খান্দারপাড়ার বাসিন্দা ও বিশিষ্ট সমাজ সেবী নীলকান্ত থান্দার । তার উদ্যোগে সোনামুখী হসপিটালে রোগী ও রোগীর আত্মীয়দের দুবেলা খাবারের সুবন্দোবস্ত করা হয়েছে তার উদ্যোগে ।

মাত্র 65 টাকা দিয়ে একটি কার্ড করালেই মিলছে 365 দিন দুপুর বেলা ও রাতের খাবার । উপকৃত হচ্ছেন হাসপাতালে রোগী ও রোগীর আত্মীয়রা । বিশেষ করে গ্রামগঞ্জ থেকে যে সমস্ত রোগীরা হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে আসেন অনেক সময় তাদের খাদ্য সঙ্কটে পড়তে হয় পরিবারের আত্মীয়-স্বজনরা সঠিক সময় খাবার পৌঁছে দিতে পারেন না তাদের কথা চিন্তা করে সামনের দিকে এগিয়ে এসেছেন নীলকান্ত বাবু ।

2021 সালের জানুয়ারি মাস থেকে হাসপাতালে তার উদ্যোগে এই কর্মসূচী চলে আসছে । দুবেলা খাবারের মেন্যুতে কোনদিন থাকছে মাছ-ভাত কোনদিন ডাল আলু পস্ত আবার কোনদিন ডিম ভাত । নিজে বাড়ি থেকে রান্না করে হাসপাতালে নিয়ে আসে তাদেরকে এই খাবার পরিবেশন করছেন তিনি আর তার সাথে সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছেন তার সতীর্থরা । আগামী যতদিন তিনি বেঁচে থাকবেন ততদিন এই কর্মসূচি চলবে বলে তিনি জানান ।

চন্দনা লোহার নামে রোগীর এক আত্মীয় বলেন,’বাঁকুড়ায় পাঁচদিন মুড়ি খেয়েছিলাম ভাত পাচ্ছিলাম না এখানে আমরা ভাত খাচ্ছি আমাদের ভিশন উপকার হচ্ছে’।

তলসি রায় নামে অপর এক রোগীর আত্মীয় বলেন,’আমাদের খুবই ভালো হচ্ছে আমরা গরীব মানুষ কখন রান্নাবান্না করে নিয়ে আসবে এখানে খাবার পাচ্ছি আমাদের ভীষণ উপকার হচ্ছে । নীলকান্ত থান্দারের এই উদ্যোগকে তারা সকলেই সাধুবাদ জানিয়েছেন’।

মহৎ এই উদ্যেশের উদ্যেক্তা নীলকান্ত থান্দার বলেন,’আমি একজন স্বয়ংসেবক সংঘ পরিবার থেকে এসেছি সাধারণ মানুষের অসুবিধার কথা চিন্তা করে এই উদ্যোগ গ্রহণ করেছি যাতে করে মানুষদের কোন সমস্যায় পড়তে না হয় । আগামী দিনে সোনামুখী হাসপাতাল চত্বরে রাতে থাকার বন্দোবস্ত করা হচ্ছে বলেও তিনি জানান’। এছাড়াও তিনি বলেন,’এখনো পর্যন্ত 5000 জন কার্ড করিয়েছেন আমার টার্গেট কুড়ি হাজার মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়ার’।

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

× How can I help you?