Thursday, February 25, 2021
Home রাজ্য ভাড়া না বাড়ালে বাস পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত বাসমালিক সংগঠনের।

ভাড়া না বাড়ালে বাস পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত বাসমালিক সংগঠনের।

ভাড়া বৃদ্ধি না হলে বাস চালানো সম্ভব নয়। তাই অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। 

অবিলম্বে ভাড়া না বাড়ালে বুধবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য একাধিক রুটে বাস ও মিনিবাস পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিল মালিকপক্ষ। বাসমালিক সংগঠনের দাবি, লকডাউনের পরে যাত্রী সংখ্যা কমে গিয়েছে। তার উপরে দাম বেড়েছে ডিজেলের। এই পরিস্থিতিতে বাস চালালে লোকসানের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। ভাড়া বৃদ্ধি না হলে বাস চালানো সম্ভব নয়। তাই অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিষেবা বন্ধের সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।        

তবে কোন কোন রুটগুলিতে তারা পরিষেবা দিতে পারবে না তারও একটি নির্দিষ্ট তালিকা দিয়েছে –       
১২ রাজাবাগান-রাজাবাজার
১২-এ রাজাবাগান-হাওড়া
১২বি কমল টকিজ- এসপ্লানেড
১২এডি আক্রাফটক-হাওড়া 
৩৯ পিকনিক গার্ডেন-হাইকোর্ট
৩৯এ/২ হাওড়া স্টেশন-ভোজেরহাট
৩৯ হাওড়া স্টেশন-ভিআইপি বাজার

লকডাউনের পরবর্তী সময়ে পরিষেবা স্বাভাবিক হলেও যাত্রী সংখ্যা কমে গিয়েছে বলে দাবি করলেন পশ্চিমবঙ্গ বাস ও মিনিবাস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের যুগ্ম সচিব প্রদীপ নারায়ণ বসু।এছাড়াও তিনি জানান,’লকডাউনের আগে বাসে দৈনিক যাত্রী উঠতেন ৭০০ থেকে ৮০০। মিনিবাসে ৫০০ থেকে ৫৩০। বাসে এখন ওঠেন ৪০০ থেকে ৫০০ জন যাত্রী। মিনিবাসে ২০০ থেকে ২৫০ জন। পাল্লা দিয়ে বেড়েছে ডিজেলের দাম। এই ভাড়ায় গাড়ি চালিয়ে লাভ তো উঠছেই না উল্টে পকেট থেকে ঘাটতি যাচ্ছে । তাই পরিষেবা বন্ধ করতে বাধ্য হলাম।’
এদিকে লোকডাউন পরবর্তী পর্বে এমনিতেই ভাড়া বাড়ানো হয়েছিল সরকার পক্ষ থেকে।সিদ্ধান্ত হয়েছিল যত সিট ততো জন যাত্রী উঠবে বসে।কিন্তু ‘নিউ নরম্যাল’ পরিস্থিতিতে সেসব কার্যত শিকেয় উঠেছে।বেশি ভাড়া নিতে এমনিতেই যাত্রীরা তিতিবিরক্ত এমত অবস্থায় ফের বাস ভাড়া বাড়ানোর দাবি করছে বাস সংঘটন ও মালিকপক্ষ।  

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

× How can I help you?