Saturday, October 16, 2021
Home রাজ্য পুরুলিয়া-বীরভূম-বাঁকুড়া 'দু-দিনের দল',আব্বাস সিদ্দিকির দলকে কটাক্ষ অনুব্রতের।

‘দু-দিনের দল’,আব্বাস সিদ্দিকির দলকে কটাক্ষ অনুব্রতের।

বীরভূম জেলায় 'ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট' দুটি কেন্দ্রে লড়াই করার সুযোগ পেতে পারে।

কৌশিক সালুই,বীরভূম:আব্বাস উদ্দিন সিদ্দিকীর ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টকে জেলাতে কোন গুরুত্বই দিতে নারাজ বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

‘সিদ্দিকীর দল যতগুলো কেন্দ্রে লড়াই করুক না কেন বীরভূমে তার কোনো প্রভাব পড়বে না’। সোমবার বীরভূমের সাঁইথিয়া ব্লকের আহমেদ পুড়ে দলের মহিলা জনসভায় সাংবাদিকদের সামনে এই মন্তব্য করলেন বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডল।

বাম এবং আব্বাস উদ্দিন সিদ্দিকী ‘ইন্ডিয়ান সেক্যুলার ফ্রন্ট’ এর সঙ্গে বাংলার আগামী বিধানসভা নির্বাচনে জোট কার্যত পাকা। বীরভূম জেলায় ‘ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট’ দুটি কেন্দ্রে লড়াই করার সুযোগ পেতে পারে। যদিও তাদের বীরভূম জেলায় নির্বাচনের ময়দানে নামাকে গুরুত্ব দিতে নারাজ বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো অনুব্রত মণ্ডল।

তিনি বলেন,” জেলায় 10 টি কেন্দ্রে লড়াই করুক না তারা মুসলিম ভোটে তার কোনো প্রভাব পড়বে না। জেলার মুসলিমরা আব্বাস উদ্দিন সিদ্দিকীকে কোন ভাবেই মানে না। বামেদের তো কিছু নেই, তা দশটায় ছেড়ে দিক। কোন প্রভাব সংখ্যালঘু ভোটে পড়বে না।। দু-দিনের যেকেউ দল করে নেবে আর গোটা পশ্চিমবাংলায় তার প্রভাব ফেলে দেবে? সে মুসলিম হলেও বাংলার ভোটে তার কোন ভূমিকা থাকবে না। আব্বাস উদ্দিন সিদ্দিকীকে কোন গুরুত্ব দেওয়ার দরকার নেই”।

প্রসঙ্গত নলহাটি এবং মুরার‌ই বিধানসভা কেন্দ্র ভোটারদের মধ্যে সিংহভাগ হলো মুসলিম। এছাড়াও বাকি কেন্দ্রগুলিতে একটা ভালো সংখ্যায় মুসলিম ভোটার আছে। সেক্ষেত্রে বামফ্রন্ট আইএস এফ কে 2-1 টি কেন্দ্রে প্রার্থী পদ ছেড়ে দিয়ে বাজিমাত করতে চাইছে। যদিও এখনো পর্যন্ত মুসলিম ভোটারদের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর গ্রহণযোগ্যতা প্রশ্নাতীত। হুগলি ও তার সংলগ্ন দু-একটি জেলাতে আব্বাস উদ্দিন সিদ্দিকীর প্রভাব বিক্ষিপ্তভাবে কিছু জায়গায় থাকলেও তা নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য যথেষ্ট নয় বলে মত রাজনৈতিক মহলের।

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

× How can I help you?