Friday, May 14, 2021
Home রাজ্য পুরুলিয়া-বীরভূম-বাঁকুড়া দুয়ারে নির্বাচন,সংগঠনকে মজবুত করতে পথে নামলো বিজেপি।

দুয়ারে নির্বাচন,সংগঠনকে মজবুত করতে পথে নামলো বিজেপি।

সংগঠন মজবুত করতে পাত্রসায়রে একাধিক কর্মসূচি বিজেপি যুব মোর্চার কর্মীদের ।

নরেশ ভকত, বাঁকুড়াঃ বিধানসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ যতই এগিয়ে আসছে,ততই সক্রিয় হচ্ছে রাজনৈতিক দলগুলি। রাজ্যের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলো নিজেদের সংগঠনকে মজবুত করতে ইতিমধ্যে ময়দানে নেমে পড়েছেন । পিছিয়ে নেই বিজেপি কর্মীরাও। ।।

মঙ্গলবার পাত্রসায়রে বিজেপির যুব মোর্চার সংগঠনকে আরো বেশী মজবুত করতে সারাদিন ব্যাপী একাদিক কর্মসূচি পালন করলো বিজেপির যুব মোর্চা।

বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার বিজেপির যুব মোর্চার সভাপতি সহ একাধিক বিজেপির যুব মোর্চার কর্মীরা পাত্রসায়ের মন্দিরে পুজো দেন। পুজো শেষে পাত্রসায়র বাজারে একটি পদযাত্রা আয়োজন করে। পদযাত্রায় প্রায় একহাজার বিজেপির যুব মোর্চার কর্মীরা পায়ে পা মিলিয়ে ছিলেন ।

পত্রসায়েরের পরে পতাশপুরেবাএকটি পথ সভার আয়োজন করা হয় । মঞ্চে বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন মঞ্চে উপবিষ্ট বিজেপির যুব মোর্চার কর্মীরা।

পদযাত্রা শেষে বিজেপির যুব মোর্চার কর্মী অনুপ ঘোষ সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে জানান,”সংগঠনকে আরো বেশী মজবুত করতে সারাদিন ব্যাপী আমাদের এই কর্মসূচি ছিল। এর ফলে আগামী দিনে বিজেপির যুব মোর্চার সংগঠন আরো বেশি মজবুত হবে”।

একইসঙ্গে,আগামী বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বিজেপির বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার প্রতিনিধিরা সাংবাদিক সম্মেলন করলেন। আজ বিষ্ণুপুরের একটি বেসরকারি লজে ভোটের রণকৌশল ঠিক করতে বিজেপির বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার নেতারা একজোট হল।

আজকের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিজেপির রাজ্য তপশিলি মোর্চার রাজ্য সভাপতি তথা বাগদার বিধায়ক দুলালচন্দ্র বর সহ বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলা সভাপতি সুজিত অগস্তি, সাধারণ সম্পাদক বিল্লেশ্বর টি, রাজ্য বিজেপির দুই সাধারণ সম্পাদক মনু সাহা এবং সঞ্জীব সরকার, বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলা তপশিলি মোর্চার সভাপতি দিবাকর ঘরামি ও অন্যান্য নেতারা।

এদিনের বৈঠক থেকে দুলালবাবু দলীয় কর্মীদের আগামী মে মাসে বিধানসভা নির্বাচনে লড়াইয়ের জন্য এখন থেকেই ঝাঁপিয়ে পড়ার নির্দেশ দেন।নির্বাচন লড়াইয়ের কলাকৌশল শেখানোর পাশাপাশি সাংবাদিক বৈঠকে দুলাল বর বলেন,”আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং গৃহমন্ত্রী অমিত শাহ্ এর স্বপ্ন রাজ্যে দুশোর বেশি আসনে জিতে সোনার বাংলা গড়া।

সঙ্গে তিনি আরো বলেন,’রাজ্যে গত ১০ বছরে কয়েক লক্ষ বেকারের সংখ্যা বেড়েছে। রাজ্যে একটাও টেট বা এসএসসি পরীক্ষা হয়নি। একটাও কলকারখানা হয়নি। রাজ্যের মানুষ এই সরকারের দ্বারা চরমভাবে বঞ্চিত হয়েছেন। তাঁরা এখন ফের পরিবর্তনের পরিবর্তন চাইছেন। তাই আমাদের কর্মীদের এখন থেকেই নির্বাচনের জন্য ঝাঁপিয়ে পড়তে বলেছি। এবার জয় আমাদের নিশ্চিত’।

করোনা পরিস্থিতিতে বিভিন্ন রাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকদের সবথেকে অসহায় অবস্থায় পড়তে হয়েছে। সেই প্রসঙ্গ টেনে এদিন দুলালবাবু বলেন ‘পরিযায়ী শ্রমিকদের জন্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন। অবিজেপি রাজ্য সহ দেশের সব রাজ্য সরকার এই সুবিধা গ্রহণ করেছে। শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শ্রমিকদের এই সুবিধা পাওয়া থেকে বঞ্চিত করেছেন। এভাবে রাজ্য চলতে পারে না। তাই এবার মানুষ এর জবাব দেওয়ার জন্য তৈরি’।

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

× How can I help you?