Sunday, May 16, 2021
Home রাজ্য পুরুলিয়া-বীরভূম-বাঁকুড়া চাষের জমিতে বুনো হাতির তান্ডব,মাথায় হাত চাষীদের।

চাষের জমিতে বুনো হাতির তান্ডব,মাথায় হাত চাষীদের।

হাতির উপদ্রবে বিঘার পর বিঘা ফসল নষ্ট মাথায় হাত সোনামুখী জঙ্গল লাগোয়া চাষীদের ।

নরেশ ভকত, বাঁকুড়াঃ গত কয়েকদিন ধরে সোনামুখী জঙ্গলে 45 থেকে 50 টি হাতির একটি দল সোনামুখী দাপিয়ে বেড়াচ্ছে । রীতিমতো ক্ষতির মুখে পড়তে হয়েছে জঙ্গল লাগোয়া বিস্তীর্ণ এলাকার আলু সরষে গম চাষীদের এমনই ছবি ধরা পরল আমাদের ক্যামেরায় । এই মুহূর্তে সোনামুখী রেঞ্জের ইন্দ কাটা বিটে অবস্থান করছে হাতির দলটি । যেখানে দেখা যাচ্ছে সোনামুখী জঙ্গল লাগোয়া মাস্টার ডাঙ্গা গ্রামে বিঘার পর বিঘা আলু নষ্ট করেছে হাতির দল পাশাপাশি গমম ও সরষে খেতেও তাণ্ডব চালায় হাতির দলটি ।

সবথেকে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন আলু চাষীরা । কেননা এ বছর আলু বীজের দাম অত্যধিক হওয়ায় আলু চাষ করতে হিমশিম খেতে হয়েছে আলুচাষিদের । বর্তমানে আলুর দাম নেই তারউপর হাতির উপদ্রবে জমির আলু জমিতেই নষ্ট হয়েছে স্বাভাবিকভাবে আগামী দিনে সংসার চলবে কিভাবে তাই ভেবে রাতের ঘুম ছুটেছে তাদের । কেউ আবার ঋণ নিয়ে আলু চাষ করেছেন দুটো বাড়তি পয়সা রোজগারের আশায় কিন্তু সব আশা ভরসা শেষ হয়ে গেল । স্থানীয় বাসিন্দারা অবশ্য বনদপ্তরের গাফিলতি কে দায়ী করছেন । যদিও বনদপ্তর চেষ্টা চালাচ্ছেন যাতে করে হাতির দলটি লোকালয়ে প্রবেশ করে সাধারণ মানুষের এবং কৃষকের ফসলের কোন ক্ষতি করতে না পারে ।

চুনারাম মুর্মু মঙ্গল মুর্মু নামের স্থানীয় ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা বলেন , ঋণ নিয়ে আলু চাষ করেছি কিন্তু হাতির উপদ্রবে সব নষ্ট হয়ে গেল এখন ঋণ কিভাবে শোধ করবো তাই ভেবে কুল পাচ্ছিনা । সারা বছর চাষ-বাস করে আমাদের সংসার চলে এখন বনদপ্তর কবে এই ক্ষতিপূরণ দেবে তাও বুঝে উঠতে পারছিনা আমরা কেউই ।

সোনামুখী রেঞ্জ অফিসার দয়াল চক্রবর্তী আমাদের ক্যামেরার মুখোমুখি হয়ে জানান , সরকারি নিয়ম অনুযায়ী সাধারণ কৃষকের ফসলের যা ক্ষতি হয়েছে তা দেওয়া হবে তবে হাতি গুলির উপর নজর রাখা হচ্ছে বলে তিনি জানান ।

- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments

× How can I help you?